মুশফিক, সাকিব, তামিম এবং মাহমুদুল্লার সাথে ১৫ লাখের গ্রেডে মুস্তাফিজ

স্পোর্টস ডেস্ক:

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের প্লেয়ার্স ড্রাফটে জায়গা পেয়েছেন ১৫৭ ক্রিকেটার। ‘এ’ গ্রেডে মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের সঙ্গে রাখা হয়েছে মুস্তাফিজুর রহমানকে। এই গ্রেডের পারিশ্রমিক ১৫ লাখ টাকা।

ঢাকার একটি হোটেলে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় শুরু হবে ড্রাফট। প্রতি দল নিতে পারবে সর্বোচ্চ ১৬ জন করে ক্রিকেটার। টুর্নামেন্টে অংশ নেবে ৫টি দল। দেশের ৫ বিভাগের প্রতিনিধিত্ব করবে ৫টি দল। স্পন্সরের সঙ্গে মিলিয়ে দলগুলির নাম ফরচুন বরিশাল, বেক্সিমকো ঢাকা, মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী, জেমকন খুলনা ও গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম।

জাতীয় দলের স্কিল ক্যাম্পে ও হাই পারফরম্যান্স স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটারদের বাইরের ক্রিকেটারদের জন্য এই ড্রাফটের আগে ফিটনেস পরীক্ষার আয়োজন করেছিল বিসিবি। সেই ফিটনেস পরীক্ষায় উতরাতে না পারায় ড্রাফটে জায়গা পাননি বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম একসময় জাতীয় দলের নিয়মিত মুখ নাসির হোসেন, সোহাগ গাজী ও ইলিয়াস সানি।

ফিটনেস পরখ করা হয়েছে বিপ টেস্ট দিয়ে, ন্যূনতম মানদণ্ড ধরা হয়েছিল ১১। বুধবার আলাদা করে ফিটনেস পরীক্ষা দিয়ে সেই মানদণ্ড ছুঁতে পারেননি সাকিব আল হাসান। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা এই অলরাউন্ডারকে তারপরও রাখা হয়েছে ড্রাফটে। সেটির কারণ ব্যাখ্যা করলেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন।

“সাকিব আল হাসানও আজকে দিয়েছে (ফিটনেস পরীক্ষা)। আমাদের স্ট্যান্ডার্ডের একদম কাছেই আছে। আমাদের ট্রেনাররা যথেষ্ট সন্তুষ্ট ওর ফিটনেস নিয়ে। আশা করি, খেলোয়াড়রা এই ধারাবাহিক উন্নতির প্রক্রিয়াতেই থাকবে ফিটনেসে, সবার পারফরম্যান্সে যথেষ্ট উন্নতি হবে।”

হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে ফিটনেস পরীক্ষা দিতে পারেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। তাকেও রাখা হয়নি ড্রাফটে। তবে মাশরাফির সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি, জানালেন প্রধান নির্বাচক।

“মাশরাফির ব্যাপারে একটা ভাবনা আছে, ওর ইনজুরি আছে। আশা করি, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ওকে পাওয়া যাবে। তখন কোনো দল চাইলে ওকে পাওয়া যাবে। যদি একাধিক দল ওকে চায়, তখন লটারি করে নির্ধারণ করা হবে।”

বিপিএলে একসময় শীর্ষ ক্যাটাগরিতে জায়গা পেয়েছিলেন যিনি, সেই সাব্বির রহমান এই টুর্নামেন্টে আছেন ‘সি’ গ্রেডে। বেশ কজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার আছেন ‘ডি’ গ্রেডে।

টুর্নামেন্ট শুরুর তারিখ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে এই মাসের তৃতীয় সপ্তাহ নাগাদ শুরু হওয়ার কথা।

গ্রেড ‘এ’ (১৫ লাখ টাকা)

মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুস্তাফিজুর রহমান।

গ্রেড ‘বি’ (১০ লাখ টাকা)

লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, ইমরুল কায়েস, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, শফিউল ইসলাম, আবু জায়েদ চৌধুরি, আল আমিন হোসেন, নাজমুল হেসেন শান্ত, রুবেল হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, তাসকিন আহমেদ, মেহেদি হাসান, আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, মোসাদ্দেক হোসেন, ইরফান শুক্কুর, মুমিনুল হক, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান।

গ্রেড ‘সি’ (৬ লাখ টাকা)

হাসান মাহমুদ, সাব্বির রহমান, আবু হায়দার, জহুরুল ইসলাম, ফরহাদ রেজা, ফজলে মাহমুদ রাব্বি, ইয়াসির আলি রাব্বি, রনি তালুকদার, সুমন খান, সানজামুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম রাব্বি, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, শামসুর রহমান, শহিদুল ইসলাম, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, ইবাদত হোসেন, সাইফ হাসান, জাকের আলি, মেহেদি হাসান রানা, আরাফাত সানি, রিশাদ হোসেন, নাসুম আহমেদ।

গ্রেড ‘ডি’ (৪ লাখ টাকা)

শাহরিয়ার নাফীস, আরিফুল হক, জুনায়েদ সিদ্দিক, সোহরাওয়ার্দী শুভ, শুভাগত হোম, নাজমুল ইসলাম অপু, সাদমান ইসলাম, এনামুল হক জুনিয়র, নাবিল সামাদ, মনির হোসেন খান, আব্বুর রাজ্জাক, জিয়াউর রহমান, মোহাম্মদ আশরাফুল, মেহেদি মারুফ, নাঈম ইসলাম, তানবীর হায়দার, জুবায়ের হোসেনসহ মোট ১০৮ ক্রিকেটার।

Loading...
Share via
Copy link
Powered by Social Snap