চেলসি ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন

Share This:

Bangla Times News Desk:

ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটিকে ১-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের এবারের মৌসুমের শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছে চেলসি। এটি ব্লুজদের দ্বিতীয় চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা। অন্যদিকে প্রথমবারেরমত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠেও ইউরোপের চ্যাম্পিয়ন হতে পারলো না ম্যানচেস্টার সিটি। চেলসির কাছে ১-০ গোলে হেরে যায় পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

শনিবার রাতে পর্তুগালের ক্লাব পোর্তোর ঘরের মাঠ এস্তাদিও দো দ্রাগাওয়ে মুখোমুখি হয় দুই ইংলিশ জায়ান্ট। ম্যাচজুড়ে সিটির আক্রমণভাগকে দমিয়ে রাখা চেলসিই বরং সুযোগ পেয়েছে বেশি। শেষ পর্যন্ত ব্যবধান গড়ে দিল ৪২ মিনিটে কাই হাভার্টজের গোল।

চতুর্দশ মিনিটে এগিয়েও যেতে পারতো ব্লুজরা। বেন চিলওয়েলের ক্রস সিটির রক্ষণে বাধা পেলেও বল পেয়ে যান কাই হাভের্টজ। জার্মান অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার সতীর্থ আবার টিমো ভার্নারের দিকে বাড়িয়ে দেন, যিনি শেষ মুহূর্তে শট নিলেও বল সোজা এদারসনের হাতে চলে যায়।

প্রথমার্ধের বিরতির কিছুক্ষণ আগে চেলসি হারায় তাদের সেরা ডিফেন্ডারকে। চোট নিয়ে মাঠ ছাড়েন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভা। তার বদলি হিসেবে নামেন আন্দ্রেস ক্রিস্টেনসেন। আর এরপর খেলার মোড় ঘুরে যায়। ৪২তম মিনিটে ম্যাসন মাউন্টের থ্রো বল ধরে গোলমুখের দিকে এগিয়ে যান হাভের্টজ এসময় এগিয়ে আসেন এদারসন। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষককে পাশ কাটিয়ে খালি জালে বল পাঠিয়ে দেন জার্মান মিডফিল্ডার।

বিরতির পর আন্তোনিও রুডিগারের সঙ্গে সংঘর্ষে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন কেভিন ডি ব্রুইনা। এতে বড় ধাক্কা খায় সিটির শিবির। বেলজিয়ান ফরোয়ার্ডকে বাজেভাবে ফাউল করায় হলুদ কার্ড দেখেন চেলসির জার্মান ডিফেন্ডার। ডি ব্রুইনার বদলে নামেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস।

এরপর ইংলিশ স্ট্রাইকার রহিম স্টার্লিংকে তুলে নিয়ে বিদায়ী স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরোকে নামান গার্দিওলা। এতেও কাজ হয়নি। পরে যোগ করা সময়ে সমতা ফেরানোর ভালো সুযোগ পেয়েছিল সিটি। কাইল ওয়াকারের লম্বা থ্রো-ইন থামাতে হেড নেন পুলিসিচ, কিন্তু বল চলে যায় বক্সের কাছে থাকা রিয়াদ মাহরেজের পায়ে। মাহরেজ দারুণ ভলিতে মেন্ডিকে পরাস্তও করেছিলেন। কিন্তু বল ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়।

বাকি সময়ে আঁটসাঁট রক্ষণে সিটিকে হতাশ করে চেলসি। এরপর শেষ বাঁশি বাজতেই উৎসবে মেতে ওঠে ব্লুজরা।

Loading...