কিশোর গ্যাং পিটিয়ে মারলো যুবককে

চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে ফসলি জমির উপর মাটি বোঝাই গাড়ি চালিয়ে ফসল নষ্ট করে আসছিল একটি চক্র। এতে বাধা দেওয়ার জেরে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

নিহত যুবকের নাম মো. শিহাব উদ্দিন মিশু (২২)। তিনি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার মগধরা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মো. শাহাবুদ্দিনের পুত্র।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে শিহাবকে পিটিয়ে আহত করে শামীম নামে স্থানীয় এক বখাটে। গুরুতর আহত অবস্থায় সিহাবকে চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম নিয়ে আসা হলে রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শামীমের নেতৃত্বে একটি কিশোর গ্যাং রয়েছে ওই এলাকায়। স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলমের ছত্রছায়ায় গত কয়েকমাস ধরে এলাকায় চাঁদাবাজি, নদীর পাড় থেকে মাটি কেনাবেচাসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিল এই দলটি।

শিহাবের পরিবারের সদস্যরা জানান, স্থানীয় মোস্তফা ও তার ছেলে শামীম শিহাবদের ফসলি জমির উপর দিয়ে নিয়মিত মাটি বোঝাই গাড়ি চালিয়ে ফসল নষ্ট করতো। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালীদের আশীর্বাদপুষ্ট হওয়ায় শিহাবদের পরিবারের পক্ষ থেকে কয়েকবার নিষেধ করলেও মানতো না। উল্টো শিহাবদের পরিবারের সদস্যদের হুমকি ধামকি দিত।

বৃহস্পতিবার বিকেলে শিহাবদের জমির উপর দিয়ে মোস্তফা ও তার ছেলে শামীম ট্রাক্টর নেওয়ার সময় শিহাব ও তার পিতা শাহাবুদ্দিন বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোস্তফা ও শামীম তার লোকজন নিয়ে বেড়িবাঁধ এলাকায় শিহাবদের দোকানে এসে তাকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। শিহাব জ্ঞান হারিয়ে অচেতন হয়ে গেলে শামীম ও তার লোকজন তাকে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে লোকজন জড়ো হয়ে শিহাবকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে শারীরিক অবস্থা দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম পাঠায়।

অভিযোগ রয়েছে, মোস্তফা ও শামীম ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে ট্রাক ও ট্রলি ভরে নিয়মিত বিক্রি করে। তারা মাটি বোঝায় গাড়ি মানুষের ফসলি জমির উপর দিয়ে নিয়মিত আনা নেওয়া করে মানুষের ফসলের ক্ষতি করে। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে তাদের কেউ বাধা দেন না।

নিহত শিহাব উদ্দিন মিশু পেশায় একজন ট্রাক চালক। তার ৮ মাস বয়সের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। ছেলেকে হারিয়ে তার পরিবারের শোকের মাতম চলছে। তার মৃত্যুর বিচার দাবি করে শুক্রবার সকাল ১১টায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সন্দ্বীপ ট্রাক চালক সমিতির সদস্যরা।

এ সময় তারা কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। শিহাব উদ্দিন মিশুর মৃত্যুর ঘটনা শুনে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

অন্যদিকে, মগধরা ইউনিয়নের প্রায় সকল ওয়ার্ডেই এই ধরনের কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত রয়েছে জানিয়ে এসবের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান এসএম আনোয়ার হোসেন।

সন্দ্বীপ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বশির আহাম্মদ খান জানান, এই ঘটনায় নিহতের পিতা বাদি হয়ে ১২ জনকে আসামি করে সন্দ্বীপ থানায় একটি মামলা করেছে। মামলার ৪ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এতে বাধা দেওয়ার জেরে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

নিহত যুবকের নাম মো. শিহাব উদ্দিন মিশু (২২)। তিনি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার মগধরা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মো. শাহাবুদ্দিনের পুত্র।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে শিহাবকে পিটিয়ে আহত করে শামীম নামে স্থানীয় এক বখাটে। গুরুতর আহত অবস্থায় সিহাবকে চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম নিয়ে আসা হলে রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শামীমের নেতৃত্বে একটি কিশোর গ্যাং রয়েছে ওই এলাকায়। স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলমের ছত্রছায়ায় গত কয়েকমাস ধরে এলাকায় চাঁদাবাজি, নদীর পাড় থেকে মাটি কেনাবেচাসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিল এই দলটি।

শিহাবের পরিবারের সদস্যরা জানান, স্থানীয় মোস্তফা ও তার ছেলে শামীম শিহাবদের ফসলি জমির উপর দিয়ে নিয়মিত মাটি বোঝাই গাড়ি চালিয়ে ফসল নষ্ট করতো। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালীদের আশীর্বাদপুষ্ট হওয়ায় শিহাবদের পরিবারের পক্ষ থেকে কয়েকবার নিষেধ করলেও মানতো না। উল্টো শিহাবদের পরিবারের সদস্যদের হুমকি ধামকি দিত।

বৃহস্পতিবার বিকেলে শিহাবদের জমির উপর দিয়ে মোস্তফা ও তার ছেলে শামীম ট্রাক্টর নেওয়ার সময় শিহাব ও তার পিতা শাহাবুদ্দিন বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোস্তফা ও শামীম তার লোকজন নিয়ে বেড়িবাঁধ এলাকায় শিহাবদের দোকানে এসে তাকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। শিহাব জ্ঞান হারিয়ে অচেতন হয়ে গেলে শামীম ও তার লোকজন তাকে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে লোকজন জড়ো হয়ে শিহাবকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে শারীরিক অবস্থা দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম পাঠায়।

অভিযোগ রয়েছে, মোস্তফা ও শামীম ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে ট্রাক ও ট্রলি ভরে নিয়মিত বিক্রি করে। তারা মাটি বোঝায় গাড়ি মানুষের ফসলি জমির উপর দিয়ে নিয়মিত আনা নেওয়া করে মানুষের ফসলের ক্ষতি করে। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে তাদের কেউ বাধা দেন না

নিহত শিহাব উদ্দিন মিশু পেশায় একজন ট্রাক চালক। তার ৮ মাস বয়সের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। ছেলেকে হারিয়ে তার পরিবারের শোকের মাতম চলছে। তার মৃত্যুর বিচার দাবি করে শুক্রবার সকাল ১১টায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সন্দ্বীপ ট্রাক চালক সমিতির সদস্যরা।

এ সময় তারা কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। শিহাব উদ্দিন মিশুর মৃত্যুর ঘটনা শুনে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

অন্যদিকে, মগধরা ইউনিয়নের প্রায় সকল ওয়ার্ডেই এই ধরনের কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত রয়েছে জানিয়ে এসবের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান এসএম আনোয়ার হোসেন।

সন্দ্বীপ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বশির আহাম্মদ খান জানান, এই ঘটনায় নিহতের পিতা বাদি হয়ে ১২ জনকে আসামি করে সন্দ্বীপ থানায় একটি মামলা করেছে। মামলার ৪ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

 

Loading...
Share via
Copy link
Powered by Social Snap