একুশ বছরের তরুণীকে করা হল কেরালার রাজধানীর মেয়র

অনলাইন ডেস্ক: ভারতের সর্বকনিষ্ঠ মেয়র হিসেবে ইতিহাস লিখতে চলেছেন আর্যা রাজেন্দ রাজধানী তিরুঅনন্তপুরম পুরসভার মেয়র হিসেবে শপথ নিতে চলেছেন ২১ বছরের কেরলের এসএফআই নেত্রী৷

কেরলের রাজধানী তিরুঅনন্তপুরম পুরসভার মেয়র হিসেবে শপথ নিতে চলেছেন ২১ বছরের কেরলের এসএফআই নেত্রী৷ আর্যা ইতিমধ্যেই দল নির্বিশেষে শুভেচ্ছায় ভেসে যাচ্ছেন৷ সকলেই চাইছেন রাজনীতিতে নিজের ছাপ রাখুন আর্যা৷কেরলের মুদাভানমুগল ওয়ার্ড থেকে তিরুঅনন্তপুরম পুরসভার লড়াইয়ে সিপিএমের প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছিলেন আর্যা৷ কাউন্সিলর হিসাবে প্রথমে নির্বাচিত হন তিনি৷ দক্ষিণের বামপন্থী এই কন্যা স্থানীয় নির্বাচনে সিপিএমের কনিষ্ঠতম প্রার্থী ছিলেন। বিপক্ষের ইউডিএফ প্রার্থীকে হারিয়ে জয়ী হন তিনি৷পেরুরকাদা ওয়ার্ডের প্রতিনিধিত্বকারী দলের প্রবীণ প্রার্থী জামিলা শ্রীধরন ও গায়ত্রী বাবুর মধ্যে যে কোনও একজনকে প্রথমে মেয়র করার কথা বিবেচনা করা হয়েছিল। তবে বামশাসিত কেরল চাইছে পরবর্তী প্রজন্মকে তৈরি রাখতে৷ যার ফলস্বরূপ স্থানীয় স্তরের নির্বাচনগুলিতেও তারুণ্যের আধিক্য দেখা গিয়েছে শাসক দল এলডিএফে৷ মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের নির্বাচনে এলডিএফ ছ’টির মধ্যে পাঁচটিতেই জেতে৷ জেলা পঞ্চায়েতেও ভাল ফল করেছে৷ জামিলার পরিবর্তে নতুন কোনও মুখকে মেয়র করার জন্য সম্মিলিতভাবে দাবি ওঠে৷ এরপর সিপিএম রাজ্য কমিটিই মেয়র পদে আর্যার নাম প্রস্তাব করে৷

তিরুঅনন্তপুরমের অল সেন্ট’স কলেজের অঙ্ক স্নাতকের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী আর্যা৷ পুরোদমে বামপন্থী রাজনীতির সঙ্গে তিনি যুক্ত৷ এসএফআইয়ের কেরল রাজ্য কমিটির সদস্য হওয়ার পাশাপাশি আর্যা সিপিএমের শাখা সংগঠন বালাসংঘমেরও প্রেসিডেন্ট৷ আর্যা নির্বাচনের আগে জানিয়েছিলেন যে, ভোটে জিতলে তিনি প্রাইমারি স্কুলগুলির উন্নয়নের পাশাপাশি অনান্য উন্নয়নমূলক কাজও চালিয়ে যাবেন৷ নির্বাচন জেতার পর আর্যা বলছেন তাঁর দল তাঁকে ঠিক যে ভূমিকা দেবে তিনি সেই ভূমিকা নিতেই প্রস্তুত আছেন৷ পাশাপাশি এও বলেছেন যে, রাজনীতি ও পড়াশোনা একই সঙ্গে চালিয়ে যাবেন তিনি৷

Loading...
Share via
Copy link
Powered by Social Snap